বিজ্ঞাপন

ঐক্যফ্রন্ট জোট নয়, ঘোট: তথ্যমন্ত্রী

October 14, 2018 | 2:48 pm

।। স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট ।।

বিজ্ঞাপন

ঢাকা: জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ, যুদ্ধাপরাধের সঙ্গে জড়িত ও স্বীকৃত দুর্নীতিবাজদের সঙ্গে নিয়ে গণতন্ত্র উদ্ধারে নবগঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ঘোষণাকে জাতির সঙ্গে ঠাট্টা-মশকরার সঙ্গে তুলনা করেছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।

তিনি বলেন, ৭ দফা দাবি ও ১১ দফা লক্ষ্যের আড়ালে রয়েছে দুর্নীতিবাজ, জঙ্গি, সন্ত্রাসীদের রাজনীতিতে ফিরিয়ে আনার একটি প্রকল্প; একটি অস্বাভাবিক সরকার আনার প্রস্তাব। এটা জোট নয়, ঘোট। এই ঘোট পাকানোর মধ্য দিয়ে তারা বাংলাদেশে একটি অস্বাভাবিক পরিস্থিতি তৈরি করতে চাচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

রোববার (১৪ অক্টোবর) সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমালোচনা করে তিনি এসব কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, জাতীয় ঐক্যের ৭ দফা দাবি ও ১১ দফা লক্ষ্যের ভেতরে কিছু অমিশন আছে, আর কিছু কমিশন আছে। কিছু জিনিস উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে উনারা বাদ দিয়েছেন এবং কিছু জিনিস উদ্দেশ্যমূলকভাবে যোগ করেছেন। ড. কামালরা জামাতের সঙ্গে বিএনপির দৃঢ় ঐক্যের বিষয়ে নিরব। রাজাকারদের সঙ্গে বিএনপির সম্পর্কের বিষয়ে তারা নিরব।

বিজ্ঞাপন

ইনু বলেন, এই ৭ দফার প্রথম সার কথা হচ্ছে— একটি অস্বাভাবিক পরিস্থিত তৈরি করে ভোটের আগে একটি অস্বাভাবিক সরকার আনা, যার কোনো সাংবিধানিক ভিত্তি নেই। দ্বিতীয় সার কথা হচ্ছে— চিহ্নিত, স্বীকৃত, সাজাপ্রাপ্ত দুর্নীতিবাজ, জঙ্গি-সন্ত্রাসী, আগুন সন্ত্রাসী, একাত্তরের খুনীদের বাংলাদেশের রাজনীতিতে ফিরিয়ে এনে আবার পুনর্বাসন করার প্রস্তাব।

নির্বাচনে সেনাবাহিনীকে ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা দিতে ঐক্যফ্রন্টের দাবির প্রসঙ্গ টেনে তথ্যমন্ত্রী বলেন, এটা অসাংবিধানিক। সেনাবাহিনীকে বিতর্কিত করা ও রাজনীতিতে প্রবেশ করানোর রাস্তা এটা। এই প্রস্তাব দুঃখজনক।

বিজ্ঞাপন

রাজবন্দিদের মুক্তির দাবিতে ঐক্যফ্রন্টের প্রস্তাব বিষয়ে ইনু বলেন, বাংলাদেশে কোনো রাজবন্দি নেই। খালেদা-তারেক স্বীকৃত ও চিহ্নিত অপরাধী। তাদের মুক্ত করতেই জোটের এই ৭ দফা।

মন্ত্রী আরও বলেন, ৭ দফা প্রস্তাব নিয়ে যারা একত্রিত হয়েছেন তারা শেখ হাসিনার সরকারকে মাইনাস করার প্রস্তাব উত্থাপন করেছেন এবং রাজাকার, বিএনপি ও জঙ্গিদের রাজনীতিতে প্লাস করার প্রস্তাব উত্থাপন করেছেন। এটা জাতি ও রাজনীতির জন্য দুঃখজনক।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এইচএ/একে

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন