রবিবার ২৫ আগস্ট, ২০১৯ ইং , ১০ ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৩ জিলহজ, ১৪৪০ হিজরি

বিজ্ঞাপন

হানিফের সমালোচনায় ছাত্রলীগ নেতারা

মে ১৫, ২০১৯ | ৬:০৫ অপরাহ্ণ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতদের ওপর পদপ্রাপ্তদের হামলার ঘটনাকে ছোট ও সাধারণ অ্যাখ্যা দেওয়ায় আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফের কড়া সমালোচনা করেছেন পদবঞ্চিত শামসুন নাহার হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি নিপু ইসলাম তন্বী।

বুধবার (১৫ মে) দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে ছাত্রলীগের বিতর্কিত কমিটির প্রতিবাদে মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলনে হামলার প্রতিবাদে ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতরা এ মানববন্ধন করেন।মানববন্ধনে মাহবুবুল আলম হানিফের বক্তব্যের সমালোচনা করেন নিপু ইসলাম তন্বী।

তন্বী বলেন বলেন, ‘আর কতটুকু লাঞ্ছিত হলে তাদের মনে হতো যে, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নারীদের ওপর নির্যাতন হয়েছে। প্রশ্ন ওঠে, আমরা মারা গেলে কী সত্যতা প্রমাণ হতো যে এখানে একটি বিশাল ঘটনা ঘটেছে।’

বিজ্ঞাপন

মানববন্ধনে নিপু তন্বী আরও বলেন, ‘সত্যিকার অর্থে বলতে আজকে দুঃখ লাগছে ছাত্রলীগের নিবেদিতপ্রাণ হিসেবে মধুর ক্যান্টিনের মতো জায়গায় ছাত্রলীগের কিছু ছোট ও বড় ভাই দ্বারা নির্যাতিত হই। এরপরে কোনো মা-বাবা, ভাই-বোন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ করার জন্য তাদের সন্তানকে পাঠাবে না। ছাত্রলীগের নারী নেত্রীরা বারবার নির্যাতিত হচ্ছেন। আর কত নির্যাতন হলে তাদের টনক নড়বে? আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় লোকদের কাছ থেকে আমরা কবে বিবৃতি পাব বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নারী নেত্রীদের ওপর সত্যিকার অর্থে বিশাল রকমের হামলা হয়েছে। সেটি একটি প্রশ্ন থেকে যায়।’

রোকেয়া হলের সভাপতি বি এম লিপি আক্তার বলেন, ‘যাদের কমিটিতে রাখা হয়েছে তাদের ২২ জন আগে কোনো পদ ছিল না, অথচ তাদের পদ দেওয়া হয়েছে। আমাদের ছোট পদ দেওয়া হয়েছে বা পদ না পাওয়ার জন্য আমরা আন্দোলন করছি না; বরং কমিটিতে মাদক মামলার আসামি, বিবাহিত, অছাত্র, ছাত্রদল, রাজাকারের সন্তানদের পদ দেওয়া হয়েছে তার জন্য আমরা আন্দোলন করছি।’

প্রসঙ্গত, গত সোমবার ছাত্রলীগের ৩০১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়। এই কমিটিতে ছাত্রদল, বিবাহিত ও রাজাকারের সন্তানদের রাখা হয়েছে অভিযোগ তুলে ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতরা সোমবার সন্ধায় মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলন করার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। এসময় তাদের ওপর ছাত্রলীগের পদপ্রাপ্তরা হামলা করেন। এতে ছাত্রলীগের কয়েকজন নারী নেত্রী ৫-৭ জন আহত হন।

সারাবাংলা/কেকে/এমআই

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন