বিজ্ঞাপন

স্পেনে জরুরি অবস্থা জারি, রাতে কারফিউ

October 26, 2020 | 10:47 am

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

নভেল করোনাভাইরাস সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় স্পেনজুড়ে জরুরি অবস্থা এবং রাত্রীকালীন কারফিউ জারি করা হয়েছে। খবর বিবিসি।

বিজ্ঞাপন

রোববার (২৫ অক্টোবর) স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেড্রো সানচেজ এই নির্দেশনা জারি করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জরুরি অবস্থার আওতায় স্থানীয়দের আঞ্চলিক ভ্রমণ বন্ধ থাকবে। এছাড়াও, রাত ১১টা থেকে সকাল ছয়টা পর্যন্ত কারফিউ বলবৎ থাকবে।

বিজ্ঞাপন

পাশাপাশি, নতুন বিধিনিষেধ আরোপের জন্য তিনি পার্লামেন্টের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। ন্যূনতম ১৫ দিন থেকে সর্বোচ্চ ছয়মাস মেয়াদে এই জরুরি নীতিমালা প্রয়োগ করা হতে পারে বলে পেড্রো সানচেজ ইঙ্গিত দিয়েছেন।

এর আগে, করোনা সংক্রমণের প্রথম ঢেউ মোকাবিলা করতে গিয়ে স্পেনে আরোপিত লকডাউন এবং কঠোর বিধিনিষেধ বিশ্বব্যাপী সমাদৃত হয়েছিল।

বিজ্ঞাপন

এদিকে, করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় ইউরোপের সবদেশই ক্রমে কঠোর বিধিনিষেধ এবং জরুরি অবস্থার আওতায় আসছে। ফ্রান্সে ইতোমধ্যেই প্যারিসসহ আরও অন্তত ১৫ শহরে রাত্রিকালীন কারফিউ জারি করা হয়েছে। তারপরও, ফ্রান্সে সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় ৫২ হাজারের বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন।

এর বাইরে, ইউরোপের আরেক দেশ ইতালিতে রোববার (২৫ অক্টোবর) থেকেই করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে নতুন বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

অন্যদিকে, স্পেনের জরুরি অবস্থার আওতায় থাকবে দেশটির ১৭ অঞ্চল। জরুরি প্রয়োজন (মেডিকেল, সেবাদানকারী) ছাড়া এক জেলা থেকে অন্য জেলায় ভ্রমণ সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। তবে, প্রয়োজনে কারফিউয়ের সময়সীমা এক ঘণ্টা এদিক-ওদিক করার ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে স্থানীয় সরকার কর্তৃপক্ষকে।

এছাড়াও, যে কোনো স্থানে একসঙ্গে ছয়জনের বেশি জমায়েত হওয়ার ওপর সরকারি নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এ ব্যাপারে স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেড্রো সানচেজ বলেছেন, ৫০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে কঠিন সময় পার করছে স্পেন। সকলের সম্মিলিত সহযোগিতার মাধ্যমে এই পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হবে।

প্রসঙ্গত, চীএর হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহান থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত স্পেনে অন্তত ৩৫ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

সারাবাংলা/একেএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন