বিজ্ঞাপন

ওয়াসার ২৬ খালের দায়িত্ব পেল ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন

December 31, 2020 | 2:16 pm

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: ঢাকা ওয়াসার নিয়ন্ত্রণে থাকা রাজধানীর ২৬টি খালের দায়িত্ব আনুষ্ঠানিকভাবে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনকে হস্তান্তর করা হয়েছে। এখন থেকে ঢাকা উত্তর ১৫টি এবং দক্ষিণ ১১টি খালের সার্বিক তত্ত্বাবধান করবে।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (৩১ ডিসেম্বর) দুপুরে রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে আনুষ্ঠানিকভাবে এ দায়িত্ব হস্তান্তর করেন মন্ত্রী তাজুল ইসলাম।

ঢাকা মহানগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে বৃষ্টির পানি নিষ্কাশনের দায়িত্ব ঢাকা ওয়াসার কাছ থেকে ঢাকা উত্তর ও ঢাকা দক্ষিণ সিটির কাছে হস্তান্তরের লক্ষ্যে সমঝোতা স্বারক স্বাক্ষর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এ দায়িত্ব হস্তান্তর করা হয়।

বিজ্ঞাপন

এই দায়িত্ব হস্তান্তরের মাধ্যমে রাজধানীর খালগুলোর বর্জ্য পরিষ্কার, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, খাল উদ্ধার, খালের পাড় বাঁধাই, ওয়াকওয়ে নির্মাণ, সবুজায়নসহ যাবতীয় সকল কাজের দায়িত্ব ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) এবং ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) যথাযথভাবে পালন ও মনিটরিংয়ে নজরদারি বাড়াবে এমন প্রত্যাশা স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী (এলজিআরডি) তাজুল ইসলামের।

দায়িত্ব হস্তান্তর শেষে তাজুল ইসলাম বলেন, ‘খালগুলো দায়িত্ব নিয়ে আরও বেশি মনিটরিং করলে আজকের দায়িত্ব হস্তান্তর সার্থক হবে। তাই আমার অনুরোধ থাকবে সিটি করপোরেশন এই কাজে সফল হবে।’

বিজ্ঞাপন

মন্ত্রী আরও বলেন, সিটি করপোরেশন রাজধানীর জলাবদ্ধতা নিরসনর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। আর একাজে ঢাকার খালগুলো বেশি কার্যকর হওয়া প্রয়োজন। নানা সমস্যায় খালগুলো সেভাবে কার্যকর হয়নি। তাই আমরা চাই সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় খালগুলো আবারও সচল হয়ে ঢাকার জলাবদ্ধতা নিরসনে ভূমিকা রাখবে। এজন্য খাল পরিষ্কার ও ব্যবস্থাপনা কাজে ওয়াসার কাছে থাকা জনবল এবং যন্ত্রপাতি সিটি করপোরেশনকে হস্তান্তর করা হবে বলে জানান স্থানীয় সরকার মন্ত্রী।

এ সময় প্রধান অতিথির বক্তব্য ডিএনসিসির মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা দীর্ঘদিন ধরে দাবি জানিয়ে আসছিলাম খালগুলো আমাদের কাছে হস্তান্তর করা হোক। সে দাবির পরিপ্রেক্ষিতে আজ হস্তান্তর করা হল। এখন আমরা আমাদের দায়িত্ব পালনে সর্বোচ্চ কাজ করবো।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, আমি মনে করি এবার খালগুলো তার আপন ঠিকানা খুঁজে পেয়েছে। আমি মনে করি যদি খালগুলো রক্ষণাবেক্ষণ করা যায় তবে ঢাকা হবে ভেনিস।

তিনি আরও বলেন, ডিএনসিসি এলাকার খালগুলোর অবৈধ দখল উদ্ধার করে খালের পাড় বাধাই করা হবে। পাশাপাশি খালের পাশ দিয়ে নাগরিকদের চলাচলের জন্য গড়ে তোলা হবে ওয়াকওয়ে। আর খালের পাড়ে লাগানো হবে পরিবেশ বন্ধু গাছ।

বিজ্ঞাপন

এসময় ডিএসসিসির মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, ‘আগামী মার্চের মধ্যে তিনটি খাল ও ‍দুটি বক্স কালভার্ট পরিষ্কার করে পানি চলাচল নিশ্চিত করা হবে। আগামী জুনের মধ্যেই আমাদের নিজস্ব অর্থায়নে সব খাল পরিষ্কার করা হবে। সব খাল দখলমুক্ত করে নান্দনিক পরিবেশ তৈরি করা হবে বলেও জানান তিনি।

তবে খাল হস্তান্তর করলেও খালের বিষয়ে যেকোনো সগযোগী দুই সিটিকে করা হবে বলে জানিয়েছেন ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাকসিম এ খান।

খালের দায়িত্ব হস্তান্তর অনুষ্ঠানে ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাকসিম খান বলেন, খালগুলো হস্তান্তর করলেও এগুলোর বিষয়ে যেকোনো মতামত, পরামর্শ এবং যেকোনো বিষয়ে সহযোগিতা গীতা করবো আমরা।

স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়, দুই সিটি করপোরেশন এবং ওয়াসার উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সারাবাংলা/এসএইচ/এমআই

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন