বিজ্ঞাপন

বিদ্রোহীদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত দুয়েকদিনের মধ্যে: হানিফ

January 20, 2021 | 9:03 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করা বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিষয়ে দুয়েকদিনের মধ্যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ।

বিজ্ঞাপন

বুধবার (২০ জানুয়ারি) দুপুরে নগরীর দারুল ফজল মার্কেটের দলীয় কার্যালয়ে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের যৌথ সাংগঠনিক সভা শেষে হানিফ সাংবাদিকদের বিষয়টি জানান।

চট্টগ্রাম বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা হানিফ বলেন, ‘আমরা মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক বিষয়ে আজ বসেছিলাম। নির্বাচনে দলীয় সমর্থিত যারা কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন, এর বাইরে যারা আছেন এখনো প্রত্যাহার করেনি, তাদের বিরুদ্ধে চূড়ান্ত শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য মহানগর আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক চিঠি দেওয়া হয়েছে কেন্দ্রে। কেন্দ্র থেকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। আমরা আশা করছি আগামী দুয়েকদিনের মধ্যে দলীয় সমর্থনের বাইরে যারা থাকবে তাদের বিরুদ্ধে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। চট্টগ্রামে দলের মেয়র প্রার্থী এবং দলীয় সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থীর বাইরে আর কেউ যদি নির্বাচন করে বা তাদের কেউ সহযোগিতা করে তবে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, ‘পাঁচ দিন বাকি আছে। আমরা আবারও বলছি- দলীয় সমর্থনের প্রার্থীর বাইরে যারা নির্বাচন করছে এবং যারা তাদের সহযোগিতা করছে, তথ্য থাকলে সবার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

চসিক নির্বাচন সহিংসতাপূর্ণ হবে না জানিয়ে তিনি বলেন, ‘সহিংসতার ব্যাপারে প্রশাসনকে ইতোমধ্যে চিঠি দেওয়া হয়েছে। সহিংসতা না হওয়ার জন্য প্রশাসন ব্যবস্থা নিয়েছে। আশা করি আর কোনো সহিংসতা হবে না। নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে। ইতোমধ্যে বিভিন্ন জায়গায় পৌরসভা নির্বাচন হয়েছে। সব নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু এবং উৎসবমুখর পরিবেশে হয়েছে।’

বিজ্ঞাপন

হানিফ বলেন, ‘সমস্যা হলো বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেয়। নির্বাচনে ফল বিপক্ষে গেলে নির্বাচন নিয়ে প্রশ্ন তোলে। নির্বাচন চলাকালীনও মিডিয়াতে বিএনপি প্রার্থীরা নির্বাচন সুষ্ঠু ও ভালো হচ্ছে বলে মত দেন। পরে হারলে বলে নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি। এটা তাদের পুরোনো অভ্যাস। নির্বাচনে জিতলে নির্বাচন সুষ্ঠু, পরাজিত হলে নির্বাচন খারাপ।’

কোনো অপশক্তি যেন দল ও সরকারের ভাবমূর্তি প্রশ্নবিদ্ধ করতে না পারে, সেদিকে নজর রাখার তাগিদ দিয়ে তিনি বলেন, ‘দলের ভেতর কোনো বিশৃঙ্খলা বরদাশত করা হবে না। যারা এসব করছেন তারা সাবধান হয়ে যান। ভবিষ্যতে দলে আপনাদের স্থান হবে না।’

বিজ্ঞাপন

সভায় আলোচনার বিষয়ে জানতে চাইলে নগর আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, ‘মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ আমরা সবাই মিলে দলীয় প্রার্থীসহ সামগ্রিক নির্বাচন নিয়ে একটি শৃঙ্খলাপূর্ণ পরিবেশ তৈরি করেছি। সেটা যেন বজায় থাকে সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। সাংগঠনিক আরও নানা বিষয়ে কথাবার্তা হয়েছে।’

সভায় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন, দফতর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক রোকেয়া বেগমও বক্তব্য রাখেন।

বিজ্ঞাপন

এছাড়া নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সাধারণ সম্পাদক সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বক্তব্য রাখেন।

সভায় উপস্থিত ছিলেন-  শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, উত্তর জেলার সভাপতি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ সালাম, নগরের সহ-সভাপতি নঈম উদ্দীন চৌধুরী, সুনীল কুমার সরকার, ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল, জহিরুল আলম দোভাষ, আলতাফ হোসেন চৌধুরী বাচ্চু, দক্ষিণ জেলার সহ-সভাপতি মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, উত্তর জেলার সাধারণ সম্পাদক শেখ আতাউর রহমান ছিলেন।

সারাবাংলা/আরডি/এসএসএ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন