বিজ্ঞাপন

‘এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ভ্যাকসিন প্রয়োগে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে’

November 1, 2021 | 3:50 pm

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: দেশে নভেল করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু হয়েছে। এই ভ্যাকসিন প্রয়োগ কার্যক্রমে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। একই সঙ্গে বিভিন্ন স্কুলের অন্য শ্রেণির শিক্ষার্থীরাও ভ্যাকসিন পাবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী।

বিজ্ঞাপন

সোমবার (১ নভেম্বর) সকালে রাজধানীর মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজে ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিন প্রয়োগ কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী।

ডা. দীপু মনি বলেন, দেশে করোনা সংক্রমণের বিস্তার রোধে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে হয়েছিল। স্কুল-কলেজ যেন দ্রুত খুলে দিতে পারি সেজন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভ্যাকসিন দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী প্রথমে আমরা বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়াদের ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু করি। সেই কার্যক্রম চলমান রয়েছে। এবার ১২-১৭ বছর বয়সীদের ভ্যাকসিনের আওতায় নিয়ে আসা হলো।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, আগামী ১৪ নভেম্বর থেকে শুরু হবে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা। তাই প্রথমে পরীক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। তবে সব পরীক্ষার্থীকে ভ্যাকসিন দিতে পারবো সেই নিশ্চয়তা আমরা দিতে পারছি না।

ইংরেজি মাধ্যম ও মাদ্রাসাসহ দেশের শিক্ষার্থীকে ভ্যাকসিনের আওতায় আনা হবে বলেও জানান শিক্ষামন্ত্রী।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, ভ্যাকসিন নেওয়ার পরও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা প্রয়োজন। তাই আমরা সবাই যেন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি।

তিনি আরও বলেন, শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিন প্রয়োগে রাজধানীর আটটি কেন্দ্র ও সারাদেশে আপাতত ২১ জেলা নির্ধারণ করা হয়েছে। আমাদের যথেষ্ট প্রস্তুতি আছে, আশা করি কোনো সমস্যা হবে না। কেউ অসুস্থ হলে চিকিৎসার ব্যবস্থাও আছে।

বিজ্ঞাপন

শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিন প্রয়োগ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, যাদের আগে দেওয়া দরকার তারা অগ্রাধিকার পাবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তালিকা অনুযায়ী ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে। ১৪ নভেম্বরের মধ্যে অনেকেই পেয়ে যাবে। তবে সব পরীক্ষার্থী পাবে কিনা এখনই বলতে পারছি না।

তিনি বলেন, আমরা একদিনে ৮০ লাখের বেশি ভ্যাকসিন দিয়েছি, সেই সক্ষমতা আমাদের আছে। প্রতিদিন ৪০ হাজার শিক্ষার্থীকে ভ্যাকসিন দেওয়া সম্ভব। যদি আরও লোকবল প্রয়োজন হয় আমরা সেই ব্যবস্থা করবো।

বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, সবার জন্য ভ্যাকসিনের ব্যবস্থা রয়েছে। তবে এখনও ১২ বছরের কম বয়সীদের ভ্যাকসিন প্রদানের অনুমোদন দেয়নি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব মো. লোকমান হোসেন মিয়া অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব মাহবুব হোসেন, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. খুরশীদ আলম, বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল মিলারসহ অন্যান্যরা।

উল্লেখ্য, ‘সব শিশু টিকা নেবে, স্বাস্থ্যঝুঁকি কমে যাবে’ প্রতিপাদ্য নিয়ে রাজধানীর আটটি কেন্দ্রে প্রতিদিন ১২-১৭ বছর বয়সী ৪০ হাজার শিক্ষার্থীকে যুক্তরাষ্ট্রের ফাইজার-বায়োএনটেকের তৈরি করোনা ভ্যাকসিন দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। রাজধানীর যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে সেগুলো হলো- হার্ডকো ইন্টারন্যাশনাল স্কুল, সাউথপয়েন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজ, চিটাগং গ্রামার স্কুল, আইডিয়াল স্কুল এন্ড কলেজ, মিরপুর কমার্স কলেজ, কাকলি হাই স্কুল অ্যান্ড কলেজ, সাউথ ব্রিজ স্কুল এবং স্কলাসটিকা স্কুল।

সারাবাংলা/এসবি

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন