বিজ্ঞাপন

রাবি ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতিতে উঠে এলো ছাত্রলীগ নেতার নাম

July 27, 2022 | 9:17 pm

রাবি করেসপন্ডেন্ট

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালেয়ের (রাবি) ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ‘এ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির দায়ে এক বছরের কারাদণ্ড দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে পাঁচ জনকে। তাদের মধ্যে দণ্ডিত রাবি শিক্ষার্থীকে জিজ্ঞাসাবাদে এই ‘প্রক্সি’কাণ্ডের ‘মূল হোতা’ হিসেবে উঠে এসেছে রাবি ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুশফিক তাহমিদ তন্ময়ের নাম। এ বিষয়ে তার বক্তব্য পাওয়া সম্ভব না হলেও বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ বলছে, কেন্দ্রের সঙ্গে কথা বলে প্রমাণসাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে তন্ময়ের বিরুদ্ধে।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার (২৬ জুলাই) অনুষ্ঠিত রাবি ‘এ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় প্রক্সি দিতে গিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের দায়িত্বে থাকা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের হাতে ধরা পড়েন পাঁচ জন। তাদের প্রত্যেককে এক বছর করে কারাদণ্ড দিয়ে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

মঙ্গলবার দণ্ডিত আসামিদের মধ্যে রয়েছেন রাবি ফোকলোর বিভাগের ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী বায়েজিদ খান। মঙ্গলবার রাতে আটকের পর তাকে জিজ্ঞাসাবাদের সময়কার একটি ভিডিও বুধবার (২৭ জুলাই) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। সেই ভিডিও ফুটেজেই দেখা গেছে, জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে বায়েজিদ ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির মূল হোতা হিসেবে তন্ময়ের নাম উল্লেখ করেন। বলেন, তিনি রাবি এসএম হলের (শাহ মখদুম হল) দ্বিতীয় তলায় থাকেন।

বিজ্ঞাপন

আরও পড়ুন- পেশায় ডাক্তার, রোগী সেজে রাবিতে প্রক্সি দিতে গিয়ে কারাগারে

বায়েজিদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তন্ময়ের পুরো নাম মুশফিক তাহমিদ তন্ময়। তিনি রাবি শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। শাহ মখ্দুম হলের দ্বিতীয় তলায় থাকেন তিনি। বায়েজিদের মতো তিনিও রাবি ফোকলোর বিভাগের ২০১৪-১৫ সেশনের শিক্ষার্থী। জানা যায়, এর আগেও ভর্তি ও সিট বাণিজ্যে জড়িত থাকার অভিযোগ উঠেছে তন্ময়ের নামে।

বিজ্ঞাপন

রাবি প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক বলেন, ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির ঘটনায় অভিযুক্তদের পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়েছে। অভিযুক্তদের একজন জিজ্ঞাসাবাদে তন্ময় নামে একজনের কথা বলেছে। আমরা প্রশাসনকে এ বিষয়ে তদন্ত করতে অনুরোধ জানিয়েছি।

এ বিষয়ে বক্তব্য জানতে তন্ময়ের রুমে গিয়েও তাকে পাওয়া যায়নি। তার মোবাইল নম্বরে কল করলেও সেটি বন্ধ পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে রাবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু বলেন, বিষয়টি আমরা শুনেছি। আমরা খুব দ্রুতই কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে কথা বলে এ ঘটনায় প্রমাণসাপেক্ষ তার (তন্ময়) বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেব।

বিজ্ঞাপন

আরও পড়ুন- রাবি ভর্তি পরীক্ষায় প্রক্সি দিতে গিয়ে ধরা, ৩ জনের কারাদণ্ড

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের মুক্তিযুদ্ধ ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা মেহেদী হাসান তাপস বলেন, বিষয়টি আমাকে কেউ জানায়নি। তবে সে (তন্ময়) সত্যি ভর্তি জালিয়াতিতে জড়িত থাকলে তার বিরুদ্ধে অবশ্যই সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিজ্ঞাপন

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে তন্ময়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে কি না— জানতে চাইলে উপাচার্য অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তার বলেন, আইন সবসময় আইনের গতিতেই চলবে। ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি চক্রের সঙ্গে যে বা যারা জড়িত, তাদের পরিচয় যাই হোক না কেন, অপরাধ প্রমাণিত হলে শাস্তির আওতায় আনা হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ও গোয়ান্দা সংস্থা তৎপর রয়েছে। আমাদের তদন্ত চলছে। আশা করছি খুব শিগগিরই জালিয়াতিতে জড়িত সবাইকে শনাক্ত করে দ্রুত আইনের আওতায় আনতে পারব।

সারাবাংলা/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন