বিজ্ঞাপন

সফটওয়্যার ও আইটিএস খাতে ২০৩০ সাল পর্যন্ত কর অব্যাহতি রাখতে হবে

June 3, 2022 | 10:18 pm

এমদাদুল হক তুহিন, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: আসন্ন বাজেটে ডিজিটাল পেমেন্ট উৎসাহিত করতে ৫ শতাংশ নগদ প্রণোদনা দেওয়ার প্রস্তাব করেছে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস)। ট্যাক্স এক্সাম্পশন সার্টিফিকেটের (কর অব্যাহতিকরণ সনদ) মেয়াদ ৩ বছর করা এবং তা ডিজিটাল করার প্রস্তাবও করা হয়েছে সংগঠনটির পক্ষ থেকে। করোনাভাইরাসের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত আইসিটি খাতের ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে আসন্ন বাজেটে ২ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ রাখারও প্রস্তাব করেছে সংগঠনটি। এছাড়া নারী উদ্যোক্তাদের জন্য ৩০০ কোটি টাকার তহবিল গঠন করার প্রস্তাব দিয়েছে বেসিস।

বিজ্ঞাপন

আসন্ন ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট আগামী ৯ জুন সংসদে উত্থাপন হওয়ার কথা রয়েছে। বাজেট ঘিরে সারাবাংলা ডটনেটের ধারাবাহিক আয়োজন ‘কেমন বাজেট চাই’র এই পর্বে কথা বলেছেন বেসিস সভাপতি রাসেল টি আহমেদ। সংগঠনটির পক্ষ থেকে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে (এনবিআর) এমন সব প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

রাসেল টি আহমেদ সারাবাংলাকে বলেন, এনবিআরে আমরা প্রস্তাব দিয়েছি ট্যাক্স এক্সাম্পশনের ডিজিটাল সার্টিকেট ইস্যু করতে। অর্থাৎ তিন বছর মেয়াদি (২০২১ সালের জুলাই থেকে ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত কার্যকর) কর অব্যাহতি সনদ ইস্যু করার প্রস্তাব করছি। একইসঙ্গে তা ডিজিটাল প্রক্রিয়ায় ইস্যু করার দাবি করছি। সফটওয়্যার ও আইটিএস খাতের কর অব্যাহতি সুবিধা ২০৩০ সাল পর্যন্ত বলবৎ রাখার প্রস্তাব করেছি।

বিজ্ঞাপন

আরও পড়ুন- নন-কটন রফতানিতে প্রণোদনা চাই

তিনি বলেন, আইটি খাতের নতুন নতুন সেবায় বিনিয়োগ আকর্ষণে আটিইএসের সংজ্ঞা হালনাগাদ করার কথা বলেছি। আইটিইএসের সংজ্ঞার ভেতরে সফটওয়্যার অ্যাজ আ সার্ভিস (SaaS), আইটি/আইটিইএস ট্রেনিং, ইন্টারনেট সার্ভিসেস খাতগুলোকে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

বিজ্ঞাপন

কর ও করপোরেট করে বিভিন্ন সুবিধা দাবি করে রাসেল টি আহমেদ বলেন, ইন্টারনেট সেবাদাতাদের জন্য করপোরেট কর এখন ৩০ শতাংশ, আইটি খাতের উন্নয়নে এটি কমিয়ে ১০ শতাংশ করতে হবে। সফটওয়্যার ও আইটি খাতের পেশাজীবীদের নির্দিষ্ট পরিমাণ আয়ের ওপর আয়কর রেয়াত দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছি। স্থানীয় সফটওয়্যার ও তথ্যপ্রযুক্তি সেবার ওপর আরোপিত উৎসে মূল্য সংযোজন কর এবং উৎস কর সম্পূর্ণ তুলে নেওয়ার প্রস্তাবও করেছি।

ডিজিটাল লেনদেনে প্রণোদনা প্রয়োজন জানিয়ে বেসিস সভাপতি বলেন, সব ক্ষেত্রে ডিজিটাল লেনদেন উৎসাহিত করতে প্রণোদনা দেওয়া দরকার। যেসব কোম্পানি অনলাইনে লেনদেন সুবিধা নেবে, তাদের ভ্যাট/এআইটি সুবিধা দেওয়া হোক। এর যুক্তি হিসেবে তিনি বলছেন, অনলাইনে লেনদেন বাড়লে তা মনিটরিংয়ের মাধ্যমে ভ্যাট/এআইটি দেওয়া হয়েছে কি না, তা যাচাই করা সম্ভব। এর ফলে ভ্যাট/এআইটি আদায় বাড়বে। তাই প্রাথমিক পর্যায়ে ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানকে অনলাইনে লেনদেন উৎসাহিত করার জন্য আগামী অন্তত তিন বছরের জন্য প্রণোদনা দেওয়া যেতে পারে।

বিজ্ঞাপন

আরও পড়ুন- বাজেটে অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারকে প্রাধান্য দিতে হবে

রাসেল টি বলেন, সাইবার সিকিউরিটি পণ্যে উচ্চশুল্ক কমিয়ে এই খাতকে করের বাইরে রাখতে হবে। ডাটাবেজ, অপারেটিং সিস্টেম, প্রোডাকটিভিটি টুলের মতো সাইবার সিকিউরিটি সফটওয়্যারের জন্য নতুন করে এইচএস কোড নির্ধারণ করে এসব পণ্য ও সেবায় ২০২২-২৩ অর্থবছরে শূন্য শুল্কহার নির্ধারণ করা যেতে পারে।

বিজ্ঞাপন

২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে বেশকিছু নতুন প্রস্তাবনাও দাবি হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে বলে জানান রাসেল টি আহমেদ। তিনি বলেন, স্বল্পোন্নত দেশ, বিশেষ করে যেসব দেশে জাতিসংঘের শান্তি মিশনে বাংলাদেশের উপস্থিতি রয়েছে, সেসব দেশে টেকনিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্স প্রজেক্টের (টিএ) জন্য ৫০০ কোটি টাকা বাজেটে বরাদ্দ রাখতে হবে। আইসিটি খাতে নারী উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করতে ৩০০ কোটি টাকার তহবিল গঠন করতে হবে। এই তহবিল থেকে নারী উদ্যোক্তাদের ২ শতাংশ সুদে ঋণ দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। সব মন্ত্রণালয় ও তাদের অধিভুক্ত সংস্থাগুলোর অভ্যন্তরীণ উন্নয়নের জন্য যে বাজেট রয়েছে, তার অন্তত ১০ শতাংশ সফটওয়্যার ও আইটিইএস কেনার জন্য বরাদ্দ করতে হবে।

করোনাভাইরাস মহামারির অভিঘাত কাটিয়ে উঠতে সার্বিকভাবে তথ্যপ্রযুক্তি খাতের জন্যই ২ হাজার কোটি টাকার আলাদা একটি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণার দাবি রয়েছে বেসিসের। সংগঠনটির সভাপতি বলেন, এই প্রণোদনা এই খাতের ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য সহায়ক হবে। পাশাপাশি নতুন স্টার্টআপ কোম্পানিগুলোকে আইসিটি পরিষেবায় ব্যবসায়িক বিনিয়োগের ওপর ২৫ শতাংশ প্রণোদনা দেওয়া যেতে পারে। ডিজিটাল পেমেন্ট উৎসাহিত করতে ৫ শতাংশ নগদ প্রণোদনা দেওয়া হোক। সরকারি কেনাকাটায় ডিজিটাল পেমেন্টকে উৎসাহিত করতে ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারকারী ও মার্চেন্টদের যথাক্রমে ৩ শতাংশ ও ২ শতাংশ নগদ প্রণোদনা ঘোষণা করা যেতে পারে। এতে সবাই ডিজিটাল পেমেন্টের মাধ্যমে কেনাকাটায় উৎসাহিত হবে।

সারাবাংলা/ইএইচটি/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন