বিজ্ঞাপন

শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অবরুদ্ধ

January 16, 2022 | 3:46 pm

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট

সিলেট: সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) বেগম সিরাজুন্নেছা হলের বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা উপাচার্য প্রফেসর ফরিদ উদ্দিন আহমদকে অবরুদ্ধ রেখে রেখেছে। বিকেল ৩ টা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের এম ওয়াজেদ মিয়া আইসিটি ভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করে রাখেন। এ সময় কয়েকজন শিক্ষক এসে আইসিটি ভবনের কলাপসিবল ফটক খুলতে চাইলে শিক্ষার্থীরা বাধা দেয়।

বিজ্ঞাপন

বিশ্ববিদ্যালয়ের বেগম সিরাজুন্নেছা হলের শতাধিক ছাত্রী প্রভোস্ট জাফরিন আহমদের পদত্যাগ সহ তিন দফা দাবিতে গত বৃহস্পতিবার মধ্যরাত থেকে দফায় দফায় বিক্ষোভ করছে।

শুক্রবার দুপুরে ছাত্রীদের একটি প্রতিনিধি দল উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমদের সঙ্গে বৈঠক করলেও তাৎক্ষণিক দাবি মেনে নেওয়ায় ছাত্রীরা আন্দোলনেই থাকে। ছাত্রীদের তিন দফা দাবির মধ্যে রয়েছে; হল প্রভোস্টের পদত্যাগ, হলের ভেতরের অব্যবস্থাপনা ও বিশৃঙ্খলা দুর করা এবং দ্রুততম সময়ের মধ্যে নতুন হল প্রভোস্ট নিয়োগ দেওয়া।

বিজ্ঞাপন

শুক্রবার রাতে বিক্ষোভের এক পর্যায়ে ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটাম দিয়ে হলে ফিরেছিলো ছাত্রীরা। কিন্তু শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত দাবি মেনে নেওয়ায় তারা ফের আন্দোলনে নামে।

শনিবার (১৫ জানুয়ারি) সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টার দিকে আন্দোলনরত ছাত্রীদের ওপর ছাত্রলীগের কর্মীরা হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেন ছাত্রীরা।

বিজ্ঞাপন

এ ঘটনার পর ছাত্রীরা তাদের ৩ দফা দাবিকে বর্ধিত করে চার দফা দাবি করে এবং নতুন দাবি হচ্ছে- হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি। রাত ১টার দিকে রোববার বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জনের ঘোষণা দিয়ে ছাত্রীরা হলে ফিরে যায়।

রোববার (১৬ জানুয়ারি) সকাল ৮টা থেকে ওই হলের ছাত্রীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের গোলচত্বর এলাকায় অবস্থান নিয়ে ব্যরিকেড দেয়। এ কারণে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কোনো বাস বাইরে বের হতে পারেনি। দিনভর বাস চলাচল বন্ধ ছিলো। বেলা আড়াইটার দিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর ড. আনোয়ারুল ইসলাম ও শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. তুলশী কুমার দাস ছাত্রীদের বিক্ষোভস্থলে এলে এক সপ্তাহের মধ্যে সব দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাস দিলেও ছাত্রীরা তা মানেনি। বরং ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা ঘোষনা দেয়— তাদের দাবি না মানা পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত রাখবে।

বিজ্ঞাপন

এই অবস্থায় বিকেল ৩ টার দিকে উপাচার্য ফরিদ আহমদ তার কার্যালয় থেকে বেরিয়ে এসে আইসিটি ভবনে গেলে ছাত্রীরা ওই ভবনের ভেতরেই অবরুদ্ধ করে রেখেছে। এ সময় কয়েকজন শিক্ষক ওই ভবনের কলাপসিবল ফটক খুলে উপাচার্যকে বের করে দিতে চাইলে ছাত্রীরা বাধা প্রদান করে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর ড. আনোয়ারুল ইসলাম জানিয়েছেন, হল প্রভোস্ট করোনায় আক্রান্ত। তিনি অনুপস্থিত থাকার কারণে আমরা এক সপ্তাহের সময় চেয়েছিলাম। কিন্তু ছাত্রীরা সে সময়ও দেয়নি। এদিকে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি থাকার কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক ও তার আশপাশ এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

আরও পড়ুন
শাবিপ্রবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উপর ছাত্রলীগের হামলার অভিযোগ
এবার ৩ দফা দাবিতে ভিসি ভবনের সামনে শাবিপ্রবি ছাত্রীরা

সারাবাংলা/একে

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন