বিজ্ঞাপন

আয়াত খুন: সব জেনেও ‘চুপ থাকা’ কিশোরের জবানবন্দি

December 7, 2022 | 10:20 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রাম নগরীতে শিশু আলীনা ইসলাম আয়াতকে খুনের পর কেটে ছয় টুকরো করে সাগরে ভাসিয়ে দেওয়ার ঘটনায় আবির আলীর ঘনিষ্ঠ এক কিশোর গ্রেফতারের পর আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে। আয়াতকে অপহরণের পরিকল্পনা থেকে হত্যাকাণ্ড সবই আবির তাকে জানিয়েছিল বলে তথ্য দিয়েছে এই কিশোর।

বিজ্ঞাপন

বুধবার (৭ ডিসেম্বর) বিকেলে চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম মেহনাজ রহমান গ্রেফতার ওই কিশোরের পাঁচ পৃষ্ঠার জবানবন্দি রেকর্ড করেন বলে জানিয়েছেন আয়াত খুনের রহস্য উদঘাটনে গঠিত পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) টিমের পরিদর্শক ইলিয়াস খান।

১৭ বছর বয়সী ওই কিশোর নগরীর ইপিজেড থানার বন্দরটিলা নয়ারহাট এলাকায় আয়াতের বাসার অদূরে ‘ভাই ভাই হোটেলের’ মেসিয়ার হিসেবে কর্মরত ছিল। একই এলাকার সাইফুল কলোনিতে ব্যাচেলর বাসায় ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করতো। তার বাবা-মা মারা গেছে। তিন বোনের মধ্যে বড় বোনের বিয়ে হয়ে গেছে। ছোট দুই বোন বরিশালে খালার সঙ্গে থাকে বলে জানা গেছে।

বিজ্ঞাপন

পিবিআই পরিদর্শক (মেট্রো) ইলিয়াস খান সারাবাংলাকে জানিয়েছেন, আবির আলীকে গ্রেফতারের পর তার ঘনিষ্ঠ ওই কিশোরকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছিল। তখন সে প্রাথমিকভাবে কিছু তথ্য দিলেও আবির আলীকে গ্রেফতার করে ঘটনার পুরো রহস্য উন্মোচনের পর ওই কিশোর সার্বিক বিষয় অবগত থাকার বিষয়ে নিশ্চিত হয় পিবিআই টিম। এরপর মঙ্গলবার দুপুরে বাসার সামনে থেকে ওই কিশোরকে গ্রেফতার করা হয়।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, গ্রেফতার কিশোর জবানবন্দিতে জানিয়েছে- বয়স এক-দেড় বছর কম হলেও শৈশব থেকেই আবির তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু। তবে তাকে ‘আবির ভাই’ বলে ডাকত। গত অক্টোবর মাসের শুরুর দিকে একদিন ওই এলাকায় নেভি গেটের পাশে নালার প্রতিরোধ দেয়ালের ওপর বসে আড্ডার সময় আবির তাকে জানায়- নয়ারহাট এলাকায় মনজুর বিল্ডিংয়ের (যে বাসায় আবিরের জন্ম এবং মায়ের সঙ্গে ছাড়াছাড়ির পর তার বাবা এখনও যে বাসায় ভাড়া থাকেন) মালিক মনজুরের নাতনি আয়াতকে অপহরণ করে মেরে ফেলবে আর তার দাদার কাছ থেকে মুক্তিপণের টাকা নেবে।

বিজ্ঞাপন

আবির তাকেও এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সঙ্গে থাকার প্রস্তাব দিলেও সে প্রত্যাখান করে। তখন আবির তাকে কাউকে কিছু না বলার নির্দেশ দেয়। তবে ‘পান-সিগারেট না খাওয়া’ আবিরকে ভদ্র-ভালো ছেলে হিসেবে জানতো বিধায় সে তার কথা পুরোপুরি বিশ্বাস করেনি।

ঘটনার দিন ১৫ নভেম্বর দুপুরে আবির ও তার এক বন্ধু রবিন ভাই ভাই হোটেলে যায়। আবির গরুর গোশত দিয়ে ভাত খায়। রবিন ভাত খায়নি, কিছুক্ষণ হোটেলে বসে চলে যায়। আবির ভাত খেয়ে চলে যায়। বিকেল ৫টার দিকে লোকজনের ছোটাছুটি দেখে খোঁজ নিয়ে জানতে পারে, আয়াতকে পাওয়া যাচ্ছে না। হোটেলে কাজ শেষে বের হওয়ার পর সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে আয়াতের বাসার বিপরীতে এক ভবনের নিচে আবিরের সঙ্গে তার দেখা হয়। দু’জন মিলে ওই এলাকার লেবার কলোনির দিকে আয়াতকে খুঁজতে বের হয়।

বিজ্ঞাপন

‘আমি আবির ভাইকে জিজ্ঞেস করি- আয়াত কোথায়, আপনি কি তাকে কিছু করেছেন? সে জানায়, আয়াতকে অপহরণের পর মেরে ফেলেছে, লাশ আকমল আলী রোডের পকেটগেট এলাকায় তার মায়ের বাসায় রেখেছে। ওই বাসায় মা এবং বোনের সঙ্গে সে থাকতো। আবির ভাই জানায়, দুই-একদিন পর আয়াতের দাদার কাছ থেকে ২০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করবে। টাকা নেওয়ার সময় আমি থাকলে আমাকেও কিছু টাকা দেওয়ার প্রস্তাব দেয়। আমি রাজি হইনি। আয়াতকে মেরে ফেলার কথা শুনে ভয় পেয়ে বাসায় চলে যাই।’

জবানবন্দিতে ওই কিশোর আরও জানায়, মানুষ সন্দেহ করবে- এই ভয়ে আয়াতকে মেরে ফেলার বিষয়টি জানার পরও সে কাউকে কিছু জানায়নি। এরপর থেকে গ্রেফতারের আগ পর্যন্ত সে নিজের মতো করে স্বাভাবিক থাকে।

বিজ্ঞাপন

জবানবন্দির শেষ পর্যায়ে ক্ষমা চেয়ে ওই কিশোর বলে, ‘আমি ক্ষমাপ্রার্থী। আমি সময়মতো আয়াতকে মেরে ফেলার ঘটনা সবাইকে বলে দিলে টুকরো টুকরো করার আগে লাশটা অন্তত পাওয়া যেত। কিন্তু আমি ভয়ে কাউকে কিছু বলিনি। পরে আমি শুনেছি- আবির আয়াতের লাশ টুকরো টুকরো করে ফেলে দিয়েছে।’

পিবিআই চট্টগ্রাম মেট্রো ইউনিটের পুলিশ সুপার নাইমা সুলতানা সারাবাংলাকে বলেন, ‘নিজের কিংবা অন্য কারও সংঘটিত অপরাধ জেনেও গোপন করা আরেকটি গুরুতর অপরাধ। আবিরের ঘনিষ্ঠ ছেলেটিকে এই অপরাধে গ্রেফতার করা হয়েছে। সে জানিয়েছে তার বয়স ১৭ বছর। কিন্তু তার জন্ম নিবন্ধন কিংবা বয়সের প্রমাণ হিসেবে কিছুই নেই। আমরা উপযুক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে তার বয়স নির্ধারণ করব। আপাতত তাকে অপ্রাপ্তবয়স্ক হিসেবে আদালতে সোপর্দ্দ করা হয়েছে। জবানবন্দি দেয়ার পর আদালত তাকে সংশোধনাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন।’

গত ১৫ নভেম্বর বিকেলে নগরীর ইপিজেড থানার দক্ষিণ হালিশহর ওয়ার্ডের নয়ারহাট এলাকার বাসিন্দা সোহেল রানার মেয়ে চার বছর ১১ মাস বয়সী আলীনা ইসলাম আয়াত নিখোঁজ হন। ১০ দিন পর ২৪ নভেম্বর পিবিআই আবির আলীকে গ্রেফতারের পর জানায়, আয়াতকে শ্বাসরোধে খুন করে লাশ কেটে ছয় টুকরো করে আবির। ১৬ নভেম্বর সকালে লাশের তিনটি টুকরা নগরীর আকমল আলী রোডের শেষপ্রান্তে বেড়িবাঁধের পর আউটার রিং রোড সংলগ্ন বে-টার্মিনাল এলাকায় সাগরে ভাসিয়ে দেয়। ওইদিন রাতে বাকি তিন টুকরা আকমল আলী রোডের শেষপ্রান্তে একটি নালায় স্লুইচগেটের প্রবেশমুখে ফেলে দেয় আবির।

আবিরকে নিয়ে গত ২৫ নভেম্বর পিবিআই টিম তার বর্ণনা অনুযায়ী ঘটনাস্থলগুলোতে গিয়ে লাশ উদ্ধারের চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। এরপর তার দেওয়া তথ্য আরও যাচাইবাছাই এবং আনুষাঙ্গিক প্রমাণ সংগ্রহে পিবিআই তাকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের আবেদন করে। প্রথম দফায় ২৬ নভেম্বর আবিরকে দুইদিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেন আদালত।

২৭ নভেম্বর পিবিআই টিম আবারও তাকে নিয়ে ঘটনাস্থলগুলোতে গিয়ে লাশ উদ্ধারের চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। ২৮ নভেম্বর দ্বিতীয় দফায় আরও সাতদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। এরপর ২৯ নভেম্বর আবিরের বাবা, মা ও ১৫ বছর বয়সী ছোট বোনকে গ্রেফতার করে আদালতের নির্দেশে তিনদিনের রিমান্ডে নেয় পিবিআই।

৩০ নভেম্বর আবিরের তথ্য মতে, আকমল আলী রোডের শেষপ্রান্তে নালা সংলগ্ন স্লুইচগেট এলাকা থেকে কচটেপ মোড়ানো পলিথিনে আয়াতের ‍দুই হাত এবং পরদিন ১ ডিসেম্বর সকালে একই অবস্থায় তার মাথা উদ্ধার করে পিবিআই টিম। এরপর ৩ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম জুয়েল দেবের আদালতে জবানবন্দি দিয়ে আয়াত হত্যার লৌমহর্ষক বর্ণনা দেয় আবির আলী। জবানবন্দিতে সে জানায়, আয়াতকে ফেরত দেওয়ার কথা বলে তার দাদা মনজুর হোসেনের কাছ থেকে ২০ লাখ টাকা আদায় করে তিনটি সিএনজি অটোরিকশা কিনে দ্রুত ধনী হওয়ার জন্য সে এই নৃশংস ঘটনা সংঘটিত করেছে।

সারাবাংলা/আরডি/পিটিএম

বিজ্ঞাপন

Tags:

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন