বিজ্ঞাপন

দেশে ফিরলেন মুরাদ হাসান

December 12, 2021 | 6:13 pm

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: অবশেষে দুবাই বিমানবন্দর থেকে নিজ দেশে ফিরেছেন সদ্য মন্ত্রিত্ব হারানো তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান। কানাডার পর সংযুক্ত আরব আমিরাতে ঢুকতে ব্যর্থ হয়ে দেশে ফিরলেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

রোববার (১২ ডিসেম্বর) বিকেল ৪টা ৫৪ মিনিটে এমিরেটস এয়ারলাইন্সের বোয়িং ৭৭৭ ইকে ৫৮৬ বিমানে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করেন তিনি।

এর আগে, দুবাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে সকাল ১০টা ৩০ মিনিটে ফ্লাইটটি রওয়ানা দেওয়ার কথা থাকলেও তা ১১টা ৪ মিনিটে রওয়ানা দেয়।

বিজ্ঞাপন

জানা গেছে, কানাডায় ঢুকতে চেয়ে ব্যর্থ হওয়ার পর আরব আমিরাতের ভিসা পাওয়ার চেষ্টায় ছিলেন মুরাদ হাসান। কিন্তু সেই চেষ্টাও ব্যর্থ হয়।

গত বৃহস্পতিবার (৯ ডিসেম্বর) রাতে দুবাই হয়ে কানাডার উদ্দেশে ঢাকা ছাড়েন মুরাদ হাসান। কিন্তু টরন্টোর পিয়ারসন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ফিরে আসতে বাধ্য হন তিনি।

বিজ্ঞাপন

সম্প্রতি ফেসবুক লাইভে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান লন্ডনে পলাতক তারেক রহমানের মেয়ে জাইমা রহমানকে নিয়ে অশালীন মন্তব্য এবং চিত্রনায়ক ইমন ও চিত্রনায়িকা মাহির সঙ্গে একটি ফোনালাপ ফাঁসের সূত্র ধরে দেশব্যাপী ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েন ডা. মুরাদ হাসান।

জাইমা রহমানকে নিয়ে ডা. মুরাদের মন্তব্যকে অভব্য, শিষ্টাচার বহির্ভূত, নারীবিদ্বেষী, কুরুচিপূর্ণ বলে অভিহিত করেন আওয়ামী লীগের অনেক নেতাকর্মীও। অন্যদিকে ইমন ও মাহির সঙ্গে ফোনালাপে মাহিকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে দিয়ে তুলে নেওয়ার হুমকিও দেন ডা. মুরাদ।

বিজ্ঞাপন

এরপর ডা. মুরাদের আরও কিছু অডিও-ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এসব অডিও-ভিডিওতে তাকে অশ্লীল কথাবার্তা বলতে এবং অসংলগ্ন আচরণ করতে দেখা যায়। নারী অধিকারকর্মীসহ রাজনীতিবিদ, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি এবং বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন বিবৃতি দিয়ে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানান প্রতিমন্ত্রীর প্রতি। এসব বিবৃতিতে প্রতিমন্ত্রীর পদত্যাগও চাওয়া হয়।

বিষয়টি অবহিত হওয়ার পর সোমবার (৬ ডিসেম্বর) রাতে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগের নির্দেশ দেন। সোমবার রাত ৮টায় প্রধানমন্ত্রীর এ নির্দেশ ডা. মুরাদকে অবহিত করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সরকারের সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

বিজ্ঞাপন

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ অনুযায়ী মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে নিজ দফতরে পদত্যাগপত্র জমা দেন ডা. মুরাদ। বিকেল ৩টার দিকে তার পদত্যাগপত্র মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পৌঁছে দেওয়া হয়। রাত ১১টার দিকে পদত্যাগপত্রটি রাষ্ট্রপতি গ্রহণ করেন।

এদিকে, জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদকের পদেও ছিলেন জামালপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য মুরাদ হাসান। ৭ ডিসেম্বর বিকেলে জেলা কমিটির এক জরুরি বৈঠক থেকে তাকে সেই পদ থেকেও অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির পরবর্তী বৈঠকে মুরাদ হাসানকে দল থেকেও স্থায়ী বহিষ্কারের বিষয়ে আলোচনার মাধ্যমে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

সারাবাংলা/এসজে/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন